সোমবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২২, ০২:০৯ অপরাহ্ন
জরুরী নোটিশঃ
Wellcome to our website...

পরিকল্পনার ‘পরি’ উড়েছে আছে কেবল ‘কল্পনা’: তবুও শ্রীরামের সাকিব বন্দনা!

অনলাইন প্রতিবেদক / ৫১ টাইম ভিউ
আপডেটঃ মঙ্গলবার, ১১ অক্টোবর, ২০২২, ১০:২১ অপরাহ্ন

টিম ম্যানেজমেন্ট ও দলে ডাক পাওয়া ক্রিটেটারদের মতোই অধিনায়ক সাকিবের প্রশংসায় পঞ্চমুখ টেকনিক্যাল কনসালট্যান্ট শ্রীধরন শ্রীরাম। সাকিবের প্রতি ভক্তি ও আস্থারও কমতি নেই তার। গঠনমূলক সমালোচনার চেয়ে তিনি প্রশংসাতেই বেশি মনোযোগী। সাকিবের গুণে মুগ্ধ শ্রীরাম এবার জানালেন, ‘এটা সাকিবের দল, তার পরিষ্কার পরিকল্পনা আছে!’

বাংলাদেশ দল না হয়ে যখন ‘সাকিবের দল’ হয়ে যায় তখনই বিপত্তিটা বাঁধে। দেশকে অনুভব না করে ‘সাকিব ভাইয়ের’ লোক হয়ে ওঠার প্রবণতা বাংলাদেশ ক্রিকেট টিমের মধ্যে প্রকট। অনেকটা দেবতাকে তুষ্ট করে অনুকম্পা লাভের আশাই বলা যায়। কেবল সাকিব নয়, ক্রিকেটপাড়ায় মাশরাফি কিংবা তামিম বন্দনার এই রীতিও বেশ পুরনোই বলা যায়। যার ফলে উন্নতি নয় অবনতির দিকেই ছুটছে ক্রিকেট।

শ্রীরামের এমন কণ্ঠস্বরও তাই শঙ্কা জাগায়। কেন শঙ্কা জাগায় এবার সেদিকটাই নজর দেওয়া যাক। সাকিবের মধ্যে বন্দনা পাওয়া গুণ অনেক। তবে সেই গুণ যখন অনিয়মকে নিয়মে পরিণত করে তখন বিপদ ঘনীভূত হয় নিশ্চয়ই।

 

ট্রফি উন্মোচনে ও অনুশীলনে না থাকা সাকিবকে ত্রিদেশীয় সিরিজের প্রথম ম্যাচেও মাঠে দেখা গেল না। দল যখন পাকিস্তানের বিপক্ষে হারছে, ‘ভ্রমণক্লান্ত’ সাকিব নাকি তখন ব্যস্ত অনুশীলনে। নানা গণমাধ্যমের খবর অন্তত সেকরমটাই বলেছিল।

প্রথম ম্যাচে দলকে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন নুরুল হাসান সোহান। বল হাতে মুস্তাফিজুর রহমান ও হাসান মাহমুদের চরম ভরাডুবির পরও পাকিস্তানকে ১৬৭ রানে থামাতে পেরেছিল টাইগাররা।

তাসকিন আহমেদ, মেহেদী মিরাজ, নাসুম আহমেদ সেদিন দুর্দান্ত বল করেছিলেন। ব্যাট হাতে দুই ওপেনার ব্যর্থ হলেও লিটন কুমার দাস ও আফিফ হোসেন ধ্রুব বেশ ভালোই করেছিলেন বলা যায়। ইয়াসির রাব্বিও খেলেছিলেন ২১ বলে ৪২ রানের দুর্দান্ত ইনিংস। যদিও তাতে হার এড়ানো যায়নি। ২১ রানে হারে টাইগাররা।

সেই ম্যাচেও কোনো গেম প্ল্যান ছিল না টাইগারদের। যার মূল্যও দিয়েছেন সোহান। হাতের নাগালের জয়টা ফসকে গেছে চালের ভুলে।

ক্রিকেট তো মাথার খেলা। দাবায় যেমন বুদ্ধিদীপ্ত চাল চালতে হয়। ক্রিকেটেও তেমন মাথা খাটানোর যথেষ্ট দরকার আছে। প্রতিপক্ষের দুর্বলতা, শক্তির জায়গা এবং সাম্প্রতিক পারফর্ম্যান্স ঘেটেই মাঠে নামতে হয়। তবে খেলার ধরণ বলেছে নুরুল হাসান সোহানরা প্রথম ম্যাচে তেমন কিছু করে মাঠে নামেননি। তাদের টেকনিক্যাল কনসালট্যান্ট ও টিম ডিরেক্টরও হয়তো পূর্ব পরিকল্পনার কোনো প্রয়োজন বোধ করেননি।

সাকিব আল হাসান অধিনায়কত্বে ফেরায় বাংলার ক্রিকেট ভক্তরা ভেবেছিলেন এবার একটা প্রোপার গেম প্ল্যান নিয়েই মাঠে নামবে টিম টাইগার। কিন্তু মাঠের খেলায় তার কোনো প্রমাণ মেলেনি।

সাকিব ওপেনিংয়ে সাব্বিরের জায়গায় শান্তকে এনেছেন। শান্ত রানও করেছেন! তবে সেই ২৯ বলে ওয়ানডেসুলভ ৩৩ রানের ইনিংস টি-টোয়েন্টিতে কার্যকর কিছু নয়। বিশেষ করে নিউজিল্যান্ডের মতো দলের বিপক্ষে। মিরাজও টানা দুই ম্যাচে ব্যর্থ। এশিয়া কাপ আর সংযুক্ত আরব আমিরাতে তার সফলতায় আশায় বুক বাঁধা ভক্তরাও তাই হতাশায় ফিরছেন।

এমনকি পজিশন বদলে সাতে নামা সাকিব আল হাসানও ব্যাট হাতে করতে পেরেছেন মাত্র ৭ রান। বল হাতে সাকিব কিপ্টে থাকলেও ব্রেক থ্রু আনতে পারেননি। শরীফুল, তাসকিনরাও যথেষ্ট নির্বিষ বোলিংয়ে খরুচে ছিলেন। একে তো স্বল্প পুঁজি, অন্যদিকে ভোতা বোলিং। সবমিলিয়ে ১৩ বল হাতে রেখেই ৮ উইকেটের বড় জয় তুলে নেয় কিউইরা।

এখানে একটা বিষয় পরিষ্কার টিমটাকে বুঝতে ও সাহসী করে তুলতে যতোটুকু পাশে ও কাছে থাকা দরকার, ততোটা কাছে-পাশে থাকছেন না সাকিব। নিজেকে অনন্য উচ্চতায় নিয়ে যাওয়া সাকিব আচরণেও হয়তো কিছুটা এলিট। ‘সাধারণ’ মাশরাফি বা রিয়াদের কাছে ক্রিকেটারদের যে প্রবেশাধিকার ছিল, হয়তো সাকিবে সেটা নেই। যদিও দলে জায়গা পোক্ত করতে সোহানরা সবসময়ই ‘সাকিব ভাই’ ‘সাকিব ভাই’ জপমাল্য আওড়ে যাচ্ছেন। সার্বিক পরিস্থিতির ভিন্নরূপ সেই কথিত সাকিবভক্তিকে যথেষ্ট প্রশ্নবিদ্ধই করছে। কারণ যে নেতা দলের এতো খোঁজ খবর রাখেন বলে তার সতীর্থরা দাবি করেন, মাঠের খেলায় তো সেই ঐক্যের প্রমাণ মেলে না বরং ছন্নছাড়া ভাবটাই পরিষ্কার।

ফলে একটা গ্যাপ তৈরি হচ্ছে বোঝাপড়ায়। আর সেই ফাঁকতালটাই অভিজ্ঞ সাকিবের অধিনায়কত্বে চির ধরিয়ে দুর্বল করে দিচ্ছে। সাথে ক্রিকেট বোর্ডের দায়সারা মনোভাবও সমানভাবে দায়ী এই অবনতির জন্য।

মাঠের খেলায় এমন পরিকল্পনার ‘পরি’ উড়িয়ে দিয়ে কেবল ‘কল্পনা’ নিয়ে টাইগাররা পড়ে থাকলেও শ্রীরাম বলছেন, ‘দলকে সামনে এগিয়ে নেওয়ার পরিষ্কার পরিকল্পনা আছে অধিনায়কের।’

টাইগারদের ‘শ্রী-হীন’ খেলা দেখার পরও শ্রীরাম দাবি করছেন, ‘দলকে স্থির রাখতে দারুণ কাজ করছে সাকিব। সে ছেলেদের বাইরে নিয়ে যাচ্ছে, সব সময় কথা বলছে। আমার মনে হয়, এই দলকে সামনে এগিয়ে নেওয়ার পরিষ্কার পরিকল্পনা আছে তার।’

এমন গুণমুগ্ধ ভক্ত পেতে নিশ্চয়ই সাত জন্মের কপাল নিয়ে আসতে হয়। কাপ্তান সাকিব আল হাসান মনে হয় তেমন ‘চাঁদ’ কপাল নিয়ে এসেছেন অথবা তার তুলা রাশি! না হয় এমন কারিগরি পরামর্শক শ্রীরামকে তিনি পেলেন কীভাবে? কতোটা ভাগ্য নিয়ে জন্মালে সবদোষও গুণ হয়ে যায় সাকিব নিজেও সেকথা জানেন কী?

অথচ শ্রীরামের কাজ হচ্ছে ত্রুটি সংশোধন করে দলকে পরিপূর্ণ করে তোলা। গেম প্ল্যানে সাকিবকে সাহায্য করা। কারিগরি ত্রুটিগুলো ধরিয়ে দিয়ে সাকিবকে শুদ্ধ করা। কিন্তু তিনিও টিম ডিরেক্টর, নির্বাচকবৃন্দ ও রাসেল ডোমিঙ্গোর পথ ধরে দোষ ঢাকায় ব্যস্ত। চরম বিপর্যয়ে খোঁজেন উন্নতি। আশাবাদী হওয়া ভালো তবে অবাস্তব আশায় যে বিপদ ঘনায়, সেকথা শ্রীরামদের কে শেখাবেন?


এই বিভাগের আরো খবর